সোমবার, ০৯ ডিসেম্বর ২০১৯, ০১:১৩ অপরাহ্ন

সাবধান ! বিষাক্ত বন্ধু

সাবধান ! বিষাক্ত বন্ধু

বন্ধু – খু্ব ছোট্ট এক শব্দ, যার অর্থ অনেক বড় । বন্ধুত্ব এক আত্নার সঙ্গে আরেক আত্নার এমন সুদৃঢ় সম্পর্ক যা কখনো কখনো রক্তের সম্পর্ককেও হার মানায় । তবে আলোর বিপরীতে যেমন অন্ধকার আছে, তেমনিভাবে প্রকৃত বন্ধুর বিপরীতে আছে অপ্রকৃৃত বন্ধুরাও। ইংরেজিতে এরকম অপ্রকৃত বন্ধুদের বলা হয় ‘Toxic Friend.’ সম্প্রতি মনোবিজ্ঞানীরা গবেষণা করে অপ্রকৃত বন্ধুদের এমনকিছু লক্ষণ বের করেছেন, যেগুলোর বেশিরভাগই যদি আপনার কোনো বন্ধুর আচরণের সঙ্গে মিলে যায়, তবে আপনার উচিত তার সঙ্গে বন্ধুত্বের বন্ধন ছিঁড়ে ফেলা। এমনকি ব্যক্তিটি যদি আপনার ঘনিষ্ঠ বন্ধুদের একজন হন, তবুও। নিচে তেমনিকিছু লক্ষণ সম্পর্কে আলোচনা করা হলো –

আপনার বন্ধু আপনাকে সময় দেন না

‘ওহ! আমার তো মনেই ছিল না আজকে তোমার সাথে দেখা করতে চেয়েছিলাম!’, ‘দোস্ত, আজকে তো একটু ব্যস্ত আছি, আমরা না হয় পরে দেখা করি?’ – কোনো বন্ধুর কাছে কি আপনি প্রায়শই এমন কথা শুনছেন? তাহলে আপনি আপনার ঐ বন্ধুটিকে ফেলতে পারেন অপ্রকৃত বন্ধুদের তালিকায়। অপ্রকৃত বন্ধুরা কখনো কখনো আপনার সঙ্গে দেখা করলেও তারা যতদ্রুত সম্ভব আলাপচারিতা শেষ করে সেখান থেকে চলে যেতে চান । এমনকি আপনাকে তারা মোটেও গুরুত্ব দিতে চান না। ভার্চ্যুয়াল জগতেও যতোটা সম্ভব আপনাকে তারা উপেক্ষা করেন।

এ ব্যাপারে সাইক্লোজিস্ট ও থেরাপিস্ট ডক্টর পারপ্যাচুয়া নিও বলেন,

‘অপ্রকৃত বন্ধুরা সত্যিই আপনার সঙ্গে মিশতে চায় না এবং দ্রুত আলাপচারিতা শেষ করতে চায়।’

তারা সবসময়ই আপনার সমালোচনা করেন

সমালোচনা প্রত্যেক সম্পর্কের জন্যই স্বাভাবিক । এমনকি ভুল সংশোধনের ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণও বটে । তবে কেউ যদি কথায় কথায় সমালোচনা করা শুরু করে, তখন ব্যাপারটা কেমন দাঁড়াবে? আপনার যদি এমন কোনো বন্ধু থাকে তাহলে তার সঙ্গে সম্পর্ক রাখার ব্যাপারে আরেকবার ভেবে নিন।

টক্সিক ফ্রেন্ডরা অন্যের প্রসংশা করে আপনাকে কষ্ট দেন

‘কাল অমুক আমাকে এটা বলেছে, তমুক আমাকে এটা দিয়েছে, অমুক অনেক ভালো, তমুক আমাকে বোঝে’ – আপনার বন্ধু যদি এভাবেই অন্যের প্রসংশায় পঞ্চমুখ থাকেন এবং তাদের সঙ্গে তুলনার মধ্যে দিয়ে আপনাকে কষ্ট দেয়, তাহলে বুঝে নিন, তার মধ্যে অপ্রকৃত বন্ধুর অন্যতম লক্ষণ রয়েছে ।

খুব সহজেই রেগে যাওয়া

অনেকের মতে অপ্রকৃত বন্ধুদের অন্যতম প্রধান লক্ষণ এটা। আপনার বন্ধু যদি সামান্য থেকে সামান্য কারণে আপনার প্রতি রেগে যান কিংবা বিরক্ত প্রকাশ করেন তাহলে এরকম বন্ধুদের থেকে দূরে সরে আসুন। মনে রাখবেন, টক্সিক ফ্রেন্ডদের উপস্থিতি আপনার জন্য কোনো সুফল বয়ে আনবে না বরং গবেষকরা দেখেছেন, টক্সিক ফ্রেন্ডদের উপস্থিতিতে ব্যক্তি তীব্র মানসিক যন্ত্রণায় ভোগেন। তাই তাদের থেকে দূরে সরে আসাটাই উত্তম।

অপ্রকৃত বন্ধু ও সত্যিকারের বন্ধুদের মধ্যে বড় কিছু পার্থক্য

  • প্রকৃত বন্ধুরা আপনাকে ফোন করেন কিংবা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমগুলোয় নক দেন কারণ তারা আপনাকে মিস করেন। অপ্রকৃত বন্ধুরা কেবলমাত্র তাদের দরকারের সময়েই আপনাকে স্মরণ করেন।
  • প্রকৃত বন্ধুরা আপনার সাফল্যকে নিজের সাফল্য বলে মনে করেন যেখানে অপ্রকৃত বন্ধুরা আপনার সাফল্যে ঈর্ষা প্রকাশ করেন ।
  • প্রকৃত বন্ধুরা আপনার সময়ের মূল্য বোঝেন। তাই তারা আপনার প্রয়োজনীয় সময় অযথা নষ্ট করেন না। অন্যদিকে অপ্রকৃত বন্ধুরা আপনার প্রয়োজনীয় সময় নষ্ট করতে সবসময় চেষ্টা করেন।

আপনার ফেসবুকে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© All rights reserved : Chalo Paltai 2018-19
© ২০১৮ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত PJM1337